×

যৌনগন্ধী ছবি থেকে আইটেম গানে চটুল নাচ! সব ছেড়ে হঠাৎ কেন পর্দার আড়ালে চলে গেলেন নায়িকা?

 
সানা

 মুম্বই:  এক সময় পর্দায় ঝড় তুলেছিলেন তিনি। আইটেম গান ‘বিল্লো রানি’-তে তাঁর শরীরি লাস্য দেখে ঘাম ঝরেছিল অনেকেরই৷ ২০০৭ সালে মুক্তি পাওয়া ‘ধন ধনা ধন গোল’ ছবিটি বক্স অফিসে সাফল্যের মুখ না দেখলেও, এই গান বেশ সারা ফেলেছিল৷ প্রচারের আলো কেড়ে নিয়েছিলেন সানা খান। স্বল্প পোশাকে আগুন ঝরিয়েছিলেন ‘বিল্লো রানি’। তাঁর শরীরী উন্মাদনা ঝড় তুলেছিল নানা মহলে৷ 

আরও পড়ুন- ‘ভেবেছিল দেবকে ভয় দেখাবে’, প্রজাপতি বিতর্কে মুখ খুললেন মিঠুন, দিলেন অশনি সঙ্কেতের ইঙ্গিত


হিন্দি ছাড়াও তামিল, তেলুগু-সহ মোট পাঁচটি ভাষার ছবিতে কাজ করেছেন সানা খান। ৫০টিরও বেশি বিজ্ঞাপনী ছবিতে দেখা গিয়েছে তাঁকে। এক সময় কাজের জন্য প্রশংসাও কুড়িয়েছিলেন৷ এর পর হঠাৎই জমকালো দুনিয়া ছেড়ে চলে গেলেন পর্দার আড়ালে৷ কিন্তু কেন? 


১৯৮৮ সালে মুম্বইয়ের ধারাভিতে জন্ম সানার। সেখানেই বেড়ে ওঠা। বড় হয়ে মডেলিংয়ের প্রতি ঝোঁক তৈরি হয় তাঁর৷ মডেলিং করতে করতেই চলে আসেন অভিনয় জগতে। ২০০৫ সালে স্বল্প বাজেটের হিন্দি ছবি  ‘ইয়ে হ্যায় হাই সোসাইটি’ তে কাজ করার সুযোগ আসে তাঁর কাছে। সেখান থেকে ধীরে ধীরে তামিল, তেলুগু, মালয়ালম এবং কন্নড় ভাষার একাধিক ছবিতে দেখা যায় সানাকে৷


সানা অভিনীত হিন্দি ছবিগুলির মধ্যে রয়েছে ‘বম্বে টু গোয়া’, ‘ধন ধনা ধন গোল’, ‘হাল্লা বোল’, ‘জয় হো’, ‘ওয়াজা তুম হো’ এবং ‘টয়লেট: এক প্রেম কথা’৷ মোট ১৪টি ছবি ছাড়াও ৫০-এর বেশি বিজ্ঞাপনে সানা কাজ করেছেন সলমন খান থেকে শুরু করে শাহরুখ খান, অক্ষয় কুমারের মতো  তারকাদের সঙ্গে।


২০১৩ সালে মালয়ালম ছবি ‘ক্লাইম্যাক্স’-এ কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেন সানা৷ বলিউডি ছবি ‘ডার্টি পিকচার’-এর অনুকরণে দক্ষিণী অভিনেত্রী সিল্ক স্মিতার জীবনের উপর এই ছবি নির্মিত হয়৷ এর আগে ২০১২ সালে জনপ্রিয় হিন্দি রিয়্যালিটি শো ‘বিগ বস ৬’-এও প্রতিযোগী হিসাবে যোগ গিয়েছিল সানাকে। তিনি বিগ-বস-এর ফাইনালেও পৌঁছেছিলেন।


২০১৯ সালে কোরিয়োগ্রাফার মেলভিন লিইসের সঙ্গে সম্পর্কের কথা নিজেই জানিয়েছিলেন অভিনেত্রী। তবে সেই সম্পর্ক বেশি দিন টেকেনি। ২০২০ সালে তাঁদের বিচ্ছেদ হয়ে যায়৷ বিনোদন দুনিয়ায় পায়ের তলার জমি যখন ধীরে ধীরে শক্ত হতে শুরু করেছে, ঠিক সেই সময়, ২০১৯ সালে, হঠাৎই অভিনয় জগতকে আলবিদা জানালে সানা। ছাড়লেন সখের মডেলিং। শুধু তা-ই নয়, আজীবন হিজাব পরার পণও করে বসলেন তিনি। সেই সঙ্গে ইসলামের যাবতীয় অনুশাসন কঠোর ভাবে মেনে চলতে শুরু করেন অভিনেত্রী। রুপোলি পর্দার চমক থেকে একেবারে মুখ ফিরিয়ে নেন সানা। কিন্তু কেন? অনেকের মনেই এই প্রশ্নটা রয়ে গিয়েছে৷ 


তবে সানা এর জবাব নিজেই জানিয়েছিলেন৷ তাঁর কথায়, ঈশ্বরের আদেশ মেনে মানুষের সেবায় আত্মনিয়োগ করতে চান তিনি। ২০২০ সালের নভেম্বর মাসে মুফতি আনাস সঈদের সঙ্গে নিকাহ সারেন সানা। তাঁর স্বামী মুফতি আবার ইসলাম ধর্ম নিয়ে গবেষণা করেছেন। হঠাৎ অভিনয় ছাড়ার কারণ জানিয়ে একটি ভিডিয়ো পোস্ট করেছিলেন সানা৷ সেখানে সানা জানান, কী ভাবে অবসাদ গ্রাস করেছিল তাঁকে। কী ভাবে মুক্তির পথ খুঁজে পেয়েছেন তিনি।


সানা বলেন, ‘‘আমি জীবনে সব কিছুই পেয়েছিলাম। নাম, যশ, টাকা, কোনও কিছুর অভাব ছিল না। কিন্তু আমার মনে কোনও শান্তি ছিল না। ধীরে ধীরে অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়ছিলাম৷’’ ওই ভিডিয়োতে সানা আরও জানান, প্রায়ই প্রতিরাতেই তিনি স্বপ্নে একটি কবর দেখতে পেতেন। এবং সেই কবরে দেখতে পেতেন নিজেকে। সানার মনে হয়েছিল, স্বপ্নের মাধ্যমে ঈশ্বর তাঁকে জীবন-পদ্ধতি বদলে ফেলার নির্দেশ দিচ্ছেন। তাঁর নির্দেশিত পথে না চললে কবরই হবে তাঁর ভবিতব্য৷ সেই ভাবনা থেকেই রাতারাতি নিজেকে বদলে ফেলেছিলেন ‘বিল্লো রানি’৷ সম্প্রতি স্বামীর সঙ্গে হজেও গিয়েছিলেন সানা। ফিরে এসে জানান, ধর্মের পথেই শান্তি খুঁজে পেয়েছেন তিনি৷ 

From around the web

Education

Headlines