×

সব্যসাচীর কথায় সাড়া দিচ্ছে, বদল ঘটছে হৃদ্‌স্পন্দনে, জানালেন ঐন্দ্রিলার মা

 
ঐন্দ্রিলা

কলকাতা: ফাইট, শুধু ফাইট৷ টানা ৬ দিন ধরে মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই চালিয়ে সোমবার ভেন্টিলেশন থেকে বেরিয়ে এলেন অভিনেত্রী ঐন্দ্রিলা শর্মা। এই খবরে খুশির হাওয়া মুর্শিদাবাদের বহরমপুরের ইন্দ্রপ্রস্থের শর্মা পরিবারে। স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছে ঐন্দ্রিলার কাছের মানুষ ও শুভানুধ্যায়ীরা৷ ঐন্দ্রিলার মা শিখা শর্মা জানান,  ঐন্দ্রিলার বিশেষ বন্ধু সব্যসাচী চৌধুরীর উপস্থিতিতে ‘খুব ভাল সাড়া’ দিচ্ছেন অভিনেত্রী৷ তিনি এ-ও জানান, সব্যর উপস্থিতিতে ঐন্দ্রিলার হৃদ্‌স্পন্দনের হারেও বদল ঘটছে।

আরও পড়ুন- পুরোপুরি জ্ঞান ফেরেনি, শ্বাসক্রিয়া অনেকটাই স্বাভাবিক, ঐন্দ্রিলার খবর দিলেন সব্যসাচী

হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, ঐন্দ্রিলার শরীরে সংক্রমণের মাত্রা অনেকটাই কম৷ জ্বর নেই৷ তবে অ্যান্টিবায়োটিক চলছে৷ চিকিৎসায় ইতিবাচক সাড়া দিচ্ছেন অভিনেত্রী৷ চিকিৎসকদের পরামর্শ মেনে শারীরিক অবস্থার উন্নতির জন্য তাঁকে ‘স্টিমুলেটিং থেরাপি’ দেওয়া হচ্ছে৷ এই থেরাপি কী, সেই ব্যাখ্যা দিয়েছেন ঐন্দ্রিলার মা৷ তিনি জানান, ‘‘ওর দিদি, বাবা ওঁর পাশে বসে ওঁর ছোটবেলার গল্প শোনাচ্ছে। ওঁর সঙ্গে কাটানো ছোট ছোট মুহূর্তগুলির কথা মনে করাচ্ছে। চিকিৎসকেরা আশা দিচ্ছেন।’’

আপাতত আর কৃত্রিম শ্বাসযন্ত্রের প্রয়োজন হচ্ছে না ঐন্দ্রিলার। তাঁর শ্বাসক্রিয়া আগের থেকে অনেকটাই স্বাভাবিক৷ এমনটাই জানিয়েছেন সব্যসাচী। এদিকে মেয়ের শারীরিক অবস্থার উন্নতি হওয়ায় খুশি শিখাদেবীও৷ এক প্রথম সারির সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে শিখা বলেন,  ‘‘সব্যসাচীর কথায় খুব ভাল সাড়া দিচ্ছে ঐন্দ্রিলা। ওর হৃদ্‌পিণ্ডের স্পন্দনের হার এবং শরীরে অক্সিজেনের মাত্রার হেরফের হচ্ছে৷’’ তবে মেয়ে যে আগের চেয়ে অনেক ভালো আছে, সে কথা জানিয়েছেন শিখা। তিনি বলেন, ‘‘কেউ ঐন্দ্রিলার পাশে গিয়ে ওঁর হাত ধরলে, ও সেই হাত ধরে ধরার চেষ্টা করছে৷ তবে এখনও সম্পূর্ণ জ্ঞান ফেরেনি।’’

সোমবার সন্ধ্যায় ঐন্দ্রিলাকে নিয়ে ফেসবুকে একটি পোস্ট করেন সব্য‌সাচী৷ তিনি লেখেন, ‘‘হাসপাতালে ৬ দিন পূর্ণ হল আজ, ঐন্দ্রিলার এখনও পুরোপুরি জ্ঞান ফেরেনি। তবে ভেন্টিলেশন থেকে বেরিয়ে আসতে পেরেছে, শ্বাসক্রিয়া আগের থেকে অনেকটাই স্বাভাবিক হয়েছে, রক্তচাপও মোটামুটি স্বাভাবিক। জ্বর কমেছে। ’’
 

From around the web

Education

Headlines