×

লাগবে আরও বেশি খাবার, লোক দিতে হবে ড্রাম থেকে জল তুলে গায়ে ঢালার! বায়না পার্থর

 
পার্থ

কলকাতা: জেলে বসে খাওয়া নিয়ে বিস্তর বায়নাক্কা প্রাক্তন মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের৷  পাতে যা পড়ছে, তাতে মোটেই সন্তুষ্ট নন তিনি৷ লাগবে আরও বেশি৷ শুধু তাই নয়, স্নান করা নিয়েও বিস্তর বায়না রয়েছে তাঁর৷ যা সামাল দিতে অস্থির জেল কর্তৃপক্ষের৷ 

আরও পড়ুন- শীতের পথে ‘ভিলেন’ নিম্নচাপ, কলকাতায় জাঁকিয়ে শীত কবে? কী বলছে হাওয়া অফিস


প্রেসিডেন্সি সংশোধনাগারের নিয়ম অনুযায়ী সপ্তাহে তিন দিন দুপুরে বন্দিদের আমিষ খাবার দেওয়া হয়৷ মাছ হলে দুই টুকরো৷ মাংস হলে চার টুকরো৷ কিন্তু পার্থর দাবি, মাছ হলে চার টুকরো আর মাংস হলে ছ’টুকরো দিতে হবে তাঁকে৷ অন্য বন্দিদের থেকে তিনি যেন বেশি পান, দাবি প্রাক্তন মন্ত্রীর৷ 


শুধু খাবার নয়, স্নান নিয়েও ঝামেলা করছেন তিনি৷ জেল সূত্রে খবর, নিরাপত্তার কারণে প্রেসিডেন্সির ‘পহেলা বাইশ’ ওয়ার্ডে পার্থের দু’নম্বর সেলের সামনেই একটি বড় প্লাস্টিকের ড্রামে জল রাখা হয়েছে। জেলে আসার পর থেকে সেখান থেকে নিজেই মগ দিয়ে জল তুলে স্নান সারতেন পার্থ। ইদানিং তাঁর আবদার, তাঁকে স্নান করানোর জন্য লোক দিতে হবে৷ যিনি ড্রাম থেকে জল তুলে তাঁর গায়ে ঢেলে দেবেন। কিন্তু পার্থর এই দাবি মানতে নারাজ জেল-কর্তৃপক্ষ৷ তাঁদের সাফ কথা, এটা কোনও ভাবেই সম্ভব নয়। এমন কোনও আইন বা বিধি-ই নেই। তাছাড়া পার্থ অসুস্থও নন। শারীরিক ভাবে সক্ষমদের ক্ষেত্রে এমন ব্যবস্থা করা যায় না। 


খাওয়া স্নান তো গেল৷ আজকাল ফোন নিয়েও সমস্যা করছেন তিনি৷ নিয়ম অনুযায়ী, জেলের বন্দিরা যে-কোনও তিনটি নম্বরে দশ মিনিট কথা বলতে পারেন। পার্থ জেল-কর্তৃপক্ষর কাছে দু’টি নম্বর দিয়েছেন। একটি নম্বর তাঁর আইনজীবীর, অন্যটি এক আত্মীয়ের। কারারক্ষীদের অভিযোগ,  তিনি যখন ফোনে কথা বলেন, তখন কোনও রক্ষীকে ধারেকাছে ঘেঁষতে দিতে চান না৷ তাঁর সেলের সামনেও সর্বক্ষণ রক্ষী রাখা যাবে না বলে দাবি তুলেছেন৷ কারারক্ষীরাও জানিয়ে দিয়েছে, পার্থর এই সব দাবি মানা সম্ভব নয়৷ আদালতের নির্দেশে বিশেষ নিরাপত্তায় রয়েছেন পার্থ৷

From around the web

Education

Headlines