×

করোনার দাপটে ত্রাহি রব, সংক্রমণ মোকাবিলার বার্তা দিল ফেসবুক

 
facebook

নয়াদিল্লি:  সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউয়ে কাবু গোটা দেশ৷ প্রতিদিন রেকর্ড সংখ্যক মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন করোনায়৷ তার উপর তৈরি হয়েছে অক্সিজেনের সঙ্কট৷ এই পরিস্থিতিতে করোনা সতর্কতা জারি করল সোশ্যাল মিডিয়া জায়েন্ট ফেসবুক৷ ইউনিসেফ এবং বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশিকা মেনেই আরও একবার নেট নাগরিকদের সতর্ক করল মার্ক জুকারবার্গের সংস্থা৷ যে চারটি বিষয়ের উপর মূলত জোড় দেওয়া হয়েছে সেগুলি হল- 
 

আরও পডুন- ২৭ বছর পর ভাঙল ঘর, বিবাহিত সম্পর্কে ইতি বিল ও মেলিন্ডা গেটসের

•    বাইরে বেরতে হলে ঠিক মতো মাস্ক পরতে হবে৷
•     কোনও রকম লক্ষণ দেখা দিলে সঙ্গে সঙ্গে আইসোলেশনে চেলে যেতে হবে৷ 
•     ভয় বা উদ্বেগের কারণ নেই৷ অধিকাংশ ক্ষেত্রেই কোভিড ১৯-এর চিকিৎসা বাড়িতেই সম্ভব৷ 
•     অবিলম্বে ভ্যাকসিনের জন্য নাম রেডিস্টার করুন এবং আপনার সুযোগের জন্য অপেক্ষা করুন৷ 

কেন এগুলি গুরুত্বপূর্ণ? বলা হচ্ছে, একমাত্র এই পন্থাগুলি অবলম্বন করেই সংক্রমণ রোখা সম্ভব৷ এই পথেই ভাইরাসকে নিয়ন্ত্রণে আনতে হবে৷ 
বাড়ি থেকে বেরলে আমাদের করণীয় কী? 

 

•     বাড়ি থেকে বেরনোর সময় যেন নাক, মুখ ও চিবুক ঢাকা থাকে৷ 
•     হাসপাতাল বা জনবহুল জায়গায় গেলে ডবল মাস্ক পরুন৷ 
•     বাড়িতে থাকলেও নিয়মিত ভাবে হাত ধুতে হবে এবং প্রয়োজনে মাস্ক পরতে হবে৷  বিশেষ করে বাইরে থেকে আসা কোনও ডেলিভারি নেওয়ার সময় বা কোনও অজানা মানুষের সঙ্গে সাক্ষাতের সময়৷ 

 

কোভিড লক্ষণ দেখা দেলে কী করতে হবে? 
•     কোনও রকম লক্ষণ দেখা দিলেই টেস্টের জন্য অপেক্ষা নয়৷ অবিলম্বে নিজেকে আইসোলেট করতে হবে৷ যাতে অন্য কারও মধ্যে সংক্রমণ না ছড়ায়৷ 
•    যদি বাড়ির ভিতরে আইসোলেশনে থাকার কোনও উপায় না থাকে তাহলে শারীরিক দূরত্ব মেনে চলতে হবে এবং সব সময় মাস্ক ব্যবহার করতে হবে৷ 
কোভিডের লক্ষণগুলি কী? 

 

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে কোভিডের সাধারণ বৈশিষ্ট্যগুলি হল- 
•    জ্বর
•    শুষ্ক কাশি
•    ক্লান্তি
•    স্বাদ বা গন্ধ চলে যাওয়া
•    নাক বন্ধ হওয়া
•    কনজাংটিভাইটিস (চোখ লাল হওয়া)
•    গলা ব্যথা
•    মাথা যন্ত্রণা
•     পেশী বা গাঁটে ব্যথা
•    বিভিন্ন ধরনের স্কিন ব়্যাশ
•    বমি ভাব
•    ডায়রিয়া
•    ঠাণ্ডালাগা বা মাথা ঘোরা

 

এর মধ্যে কোনও লক্ষণ দেখা দিলে অবিলম্বে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে৷ সঠিক ওষুধ খেতে হবে৷ তবে ভয় পেলে চলবে না৷ ৮৫ শতাংশ ক্ষেত্রে বাড়িতেই চিকিৎসা সম্ভব কোভিডের৷ ছয় ঘণ্টা অন্তর অন্তর অক্সিজেনের মাত্রা পরীক্ষা করে দেখতে হবে৷ 
 

From around the web

Education

Headlines