Aajbikel

বামেদের সঙ্গে জোট ধরে নিয়েই আসন বাছছে কংগ্রেস! নজরে কোনগুলি?

 | 
বাম-কংগ্রেস

নিজস্ব প্রতিনিধি: রেড রোডের ধর্না মঞ্চ থেকে রাহুল গান্ধী তথা কংগ্রেসকে নজিরবিহীন আক্রমণ করেছেন তৃণমূলের সর্বময় নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। 'ইন্ডিয়া' জোটের অন্যতম শক্তিশালী শরিক মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এভাবে যে কংগ্রেসকে নিশানা করবেন তা কেউ ভাবতেও পারেননি। অর্থাৎ যেটুকু জোটের সম্ভাবনা ছিল তা এতে পুরোপুরি নষ্ট হয়ে গেল বলে রাজনৈতিক মহল মনে করছে। যদিও কংগ্রেস হাইকমান্ড এখনও  নরম অবস্থান নিয়ে জোটবার্তা দিয়ে চলেছেন। কিন্তু প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্ব বুঝে গিয়েছেন তৃণমূলের সঙ্গে জোট হওয়ার সম্ভাবনা কার্যত নেই বললেই চলে। এই পরিস্থিতিতে বামেদের সঙ্গেই কংগ্রেসের জোট হবে, এমন প্রেক্ষাপট অত্যন্ত স্পষ্ট। তাই বামেদের সঙ্গে জোট হলে কোন কোন আসনে কংগ্রেস লড়তে চায় তা বেছে নেওয়ার কাজ প্রাথমিকভাবে শুরু হয়ে গিয়েছে বলেই খবর। সেক্ষেত্রে সংখ্যালঘু অধ্যুষিত বেশ কয়েকটি আসন রয়েছে বলে বিধানভবন সূত্রে জানা গিয়েছে।

রাজ্য কংগ্রেসের একটি সূত্রে খবর, বামেদের সঙ্গে জোট হলে তারা অন্ততপক্ষে ১৫ টি আসনে লড়তে চায়। আর বামেদের পাশাপাশি ডায়মন্ড হারবার কেন্দ্রে যদি আইএসএফ বিধায়ক নওশাদ সিদ্দিকী শেষমেশ লড়েন তবে সেখানেও তাঁকে সমর্থন জানানোর সিদ্ধান্ত এক প্রকার নিয়েই ফেলেছে রাজ্য কংগ্রেস। একুশের বিধানসভা নির্বাচনের সময় আইএসএফ-কে নিয়ে  কংগ্রেসের যে অ্যালার্জি ছিল তা এখন পুরোপুরি কেটে গিয়েছে। তাই তাদের সমর্থন করতে এখন আর অসুবিধা নেই। জানা গিয়েছে কংগ্রেস যে আসনগুলিতে লড়তে চায় বলে প্রাথমিকভাবে ঠিক করেছে সেগুলি হল বহরমপুর, জঙ্গিপুর, মালদা দক্ষিণ, রায়গঞ্জ, বসিরহাট, পুরুলিয়া, বীরভূম, দার্জিলিং, হাওড়া বা উলুবেড়িয়ার মধ্যে একটি, কলকাতা উত্তর, রানাঘাট বা কৃষ্ণনগরের মধ্যে একটি। এছাড়া পশ্চিম মেদিনীপুর, জঙ্গলমহল এবং উত্তরবঙ্গের একটি দুটি আসনও কংগ্রেসের তালিকায় রয়েছে বলে খবর।

শেষপর্যন্ত তৃণমূল যদি সত্যিই কংগ্রেসের সঙ্গে জোট না করে, তখন হাইকমান্ড বাধ্য হবে বামেদের সঙ্গে জোটের ক্ষেত্রে সবুজ সঙ্কেত দিতে। তখন যাতে দেরি না হয়ে যায় সেই কারণে এখন থেকেই যে আসনগুলিতে কংগ্রেস লড়তে চায়, তার সম্ভাব্য তালিকা তৈরি করে ফেলা হচ্ছে দলের তরফে। সেখানে উল্লিখিত আসনগুলি রয়েছে বলেই খবর। রাজ্য কংগ্রেস নিশ্চিত বামেদের সমর্থন পেলে এই আসনগুলিতে তারা বিজেপি ও তৃণমূলের বিরুদ্ধে তুল্যমূল্য লড়াই দিতে পারবে। কারণ পঞ্চায়েত নির্বাচনে এই সমস্ত অঞ্চলে কংগ্রেস ও বামেরা যথেষ্ট লড়াই দিতে পেরেছিল। সেক্ষেত্রে লোকসভা নির্বাচনে লড়াইটা জমে যেতে পারে। তবে সবটাই নির্ভর করছে কংগ্রেস হাইকমান্ডের উপর। শীর্ষ নেতৃত্ব যে সিদ্ধান্ত নেবেন সেটাই মেনে চলতে হবে রাজ্য কংগ্রেসকে। শেষপর্যন্ত পশ্চিমবঙ্গের জোট-নাটক কোন দিকে যায় এখন তারই অপেক্ষা।
 

Around The Web

Trending News

You May like