×

চিনা আগ্রাসনে ধৈর্যের পরিচয় দিয়েছে ভারতীয় সেনা, রাজ্যসভা প্রতিক্রিয়া প্রতিরক্ষামন্ত্রীর

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, নয়াদিল্লি: লাদাখ সীমান্তে ভারত ও চিনা সেনার আগ্রাসন নিয়ে একে অপরের বিরুদ্ধে সরগরম দুই দেশ। দুদেশের প্রতিনিধিরা নিজেদের মধ্যে সমস্যার সমাধানের কথা বললেও আসলে বরফ গলছে না। সীমান্তে উত্তেজনা বাড়ছে আর সেই উত্তেজনার রেশ এসে আছড়ে পড়ছে দেশের সংসদে। এর মধ্যেই বৃহস্পতিবার ফের একবার সীমান্তে ভারতীয় সেনার সপক্ষে গলা তুললেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং।

তিনি এদিন রাজ্যসভায় বলে সীমান্তে চিনা সেনার আগ্রাসনের মোকাবিলা করেছে ভারতীয় সেনা বাহিনী। প্ৈযাংগং লেকের বিভিন্ন পাড়ে চিনা সেনা বারবার নিজের দখলদারি কায়েম করতে চাইছে এবং ভারতীয় সমস্যায় ফেলার চেষ্টা করছে। তবে তাদের সে চেষ্টা ব্যর্থ করেছে ভারতীয় বাহিনী। রাজনাথ সিং বলেন,  এর মাধ্যমে প্রমাণিত হয়,  সাহস এবং ধৈর্যের পরিচয় দিয়েছে ভারতীয় সেনা।

রাজ্যসভায় বিবৃতিতে তিনি বলেন,"এই সমস্ত ঘটনায় ভারতীয় বাহিনীর সঠিক পদক্ষেপ করেছে। চীনের প্ররোচনামূলক পদক্ষেপের ফাঁদে না পড়ে যথেষ্ট সামঞ্জস্যপূর্ণ কাজ করেছে এবং ভারতীয় ভূখণ্ডের অখন্ডতা বজায় রাখতে ধৈর্যের পরিচয় দিয়েছে ভারতের বাহিনী"। প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং বলেন,  লাদাখে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের প্রায় ৩৮,০০০ বর্গকিলোমিটার এলাকা অবৈধভাবে দখল করে রেখেছে চিনা সেনা।

তাঁর কথায় উঠে আসে চিনের তরফে এই অবৈধ দখলের প্রক্রিয়া চলছেই। তিনি আরও বলেন অরুণাচলপ্রদেশ এবং পূর্ব লাদাখের ভারত চিন সীমান্ত অঞ্চলের প্রায় ৯০ হাজার বর্গ কিলোমিটার এলাকা নিজেদের বলে দাবি করে চিন। এছাড়াও, ১৯৬৩ তথাকথিত চুক্তি অনুযায়ী, ভারতীয় ভু খণ্ডের অধিকৃত কাশ্মীরের প্রায় ৫১৮০ বর্গ কিলোমিটার এলাকা চীনকে দেয় পাকিস্তান। ভারত চিন সীমান্তের পূর্বদিকে অরুণাচল প্রদেশের ৯০,০০০ বর্গ কিলোমিটার এলাকাও দাবি করেছে তারা৷’’

প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজ্যসভায় জানান, ‘‘১৫ জুন ভারতীয় ভূখণ্ড অখন্ডতা রক্ষা করতে আত্মবলিদান দেন কর্নেল সন্তোষ বাবু সহ ১৯ জন বীর সৈনিক। বাহিনীর মনোবল বাড়াতে সীমান্তে যান প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদি৷’’ লাদাখ সীমান্ত জুড়ে সেনা সক্রিয়তা বাড়িয়েছে দুতরফ। বারবার আগের মত পরিস্থিতি ফেরানোর কথা বলা হলেও চিনের তরফে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখার কাছাকাছি এগিয়ে আসার খবর মিলছে বলেও জানা যায়।

From around the web

Education

Headlines