×

ভারতে করোনার সেকেন্ড ওয়েভ! আক্রান্তের হিসাব তেমনই ইঙ্গিত দিচ্ছে

নয়াদিল্লি: কোভিড-১৯ মহামারীর থার্ড ওয়েভে রয়েছে দিল্লি। দিল্লিতে প্রতিদিন নতুন নতুন করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় পনেরো দিন ধরে বাড়ছে। বৃহস্পতিবার কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলটিতে সাড়ে সাত হাজারেরও বেশি নতুন মামলার খবর পাওয়া গিয়েছে। এছাড়া দেশের অন্যান্য রাজ্যগুলির যা অবস্থা তাতে মনে হচ্ছে ভারত করোনা ভাইরাসের সেকেন্ড ওয়েভ দেখতে শুরু করবে।
 


নয়াদিল্লি: কোভিড-১৯ মহামারীর থার্ড ওয়েভে রয়েছে দিল্লি। দিল্লিতে প্রতিদিন নতুন নতুন করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় পনেরো দিন ধরে বাড়ছে। বৃহস্পতিবার কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলটিতে সাড়ে সাত হাজারেরও বেশি নতুন মামলার খবর পাওয়া গিয়েছে। এছাড়া দেশের অন্যান্য রাজ্যগুলির যা অবস্থা তাতে মনে হচ্ছে ভারত করোনা ভাইরাসের সেকেন্ড ওয়েভ দেখতে শুরু করবে।

দেশে প্রথম প্রথম সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার পর প্রায় ছয় মাস ধরে প্রতিদিন নতুন নতুন করোনা আক্রান্তের খবর পাওয়া যাচ্ছে। ১০ সেপ্টেম্বর (যখন ৯৯,১৮১ নতুন মামলা রিপোর্ট করা হয়েছিল) প্রতিদিনের নতুন আক্রান্তের সংখ্যা ১ লক্ষের মার্ক ছুঁতে চলেছিল। এর পরে অক্টোবরের শেষ অবধি প্রতিদিনের নতুন ক্ষেত্রে হ্রাস প্রবণতা হ্রাস হওয়ার আগে প্রতিদিনের নতুন মামলার গ্রাফ স্থিতিশীল হয়েছিল। প্রতিদিনের নতুন কেসগুলি এই সপ্তাহের শুরুতে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে হ্রাস পেয়েছে। কিন্তু বুধবার ও বৃহস্পতিবার ভারতে গড়ে ৪৫ হাজার ৮০০ টি নতুন আক্রান্ত হয়েছে, যা গত সপ্তাহের সপ্তাহের তুলনায় কিছুটা বেশি। রেকর্ড করা মামলাগুলি সাধারণত একদিনের মধ্যে পরীক্ষিত মামলা অনুসারে পিছিয়ে রয়েছে। গত সপ্তাহে প্রতিদিন যেখানে গড়ে ১০ লক্ষ ৯৮ হাজার ২০০টি পরীক্ষা করা হচ্ছিল সেখানে শনিবার ৭ লক্ষ ৩৫ হাজার ৫৫১টি পরীক্ষা করা হয়েছে।

ভারতে প্রতিদিনের নতুন করোনা আক্রান্ত মামলার গ্রাফটি প্রথমে শীর্ষে উঠেছিল। পরে তা হ্রাস পায় এবং এখন মোটামুটি স্থির হয়েছে। অন্যান্য বড় দেশগুলিতেও মহামারীটির পরবর্তী ওয়েভ দেখার সময়ও একই ঘটনা ঘটেছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে (এটি এখন মহামারীর থার্ড ওয়েভে রয়েছে), ব্রিটেন (সেকেন্ড ওয়েভের শীর্ষের কাছাকাছি রয়েছে বলে মনে হয়), রাশিয়া এবং ইতালিতে (উভয়ই সেকেন্ড ওয়েভ দেখছে) এমনই দেখা গিয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং রাশিয়ার পরবর্তী তরঙ্গ পূর্ববর্তী তরঙ্গ থেকে প্রতিদিনের নতুন আক্রান্ত বন্ধ হওয়ার পরে এসেছিল। ইতালি এবং যুক্তরাজ্যের ক্ষেত্রে, প্রথম এবং দ্বিতীয় তরঙ্গের মধ্যে দীর্ঘতর ব্যবধান ছিল।

ভারতে এটি কীভাবে সরানো হয় তা সময় বলবে। তবে দিল্লি বাদে ভারতের বেশ কয়েকটি বড় রাজ্য থেকে প্রাপ্ত তথ্য দেখায় যে শেষের পাক্ষিকের দিকে সেখানে মামলাগুলি বাড়তে শুরু করেছে। গুজরাট, হরিয়ানা, হিমাচল প্রদেশ, মধ্য প্রদেশ, রাজস্থান এবং পাঞ্জাব এর অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল চণ্ডীগড়ও প্রতিদিনের নতুন ক্ষেত্রে সামান্য বর্ধমান প্রবণতা দেখিয়েছে। এই রাজ্যগুলি এবং দিল্লি ভারতের জনসংখ্যার প্রায় এক চতুর্থাংশের ক্ষেত্রে এই ঘটনা ঘটছে। এর মধ্যে তিনটি রাজ্য- গুজরাট, মধ্য প্রদেশ এবং রাজস্থান মহামারীটির প্রথম তরঙ্গকে নেতৃত্বদানকারীদের মধ্যে ছিল। এগুলি বড় রাজ্য। সুতরাং এক্ষেত্রে তীব্র বৃদ্ধি জাতীয় মামলার পরিমাণ বাড়িয়ে দিতে পারে। অন্ধ্র প্রদেশ, আসাম, কর্ণাটক, মহারাষ্ট্র এবং তামিলনাড়ুর মতো রাজ্যে প্রতিদিন নতুন নতুন মামলার প্রবণতা কমতে শুরু করেছে।
 

From around the web

Education

Headlines