Aajbikel

কোন পথে NIFTY50? সপ্তাহ শেষে CE না PE-এ হবে লক্ষ্মীলাভ?

 | 
nifty

মুম্বই: একদিকে নতুন করে করোনা আতঙ্ক, অন্যদিকে কেন্দ্রের নয়া প্রস্তাবিত পরিবহণ আইন বাতিলের দাবিতে দেশজুড়ে লাগাতার চলছে ট্রাক চালকদের ধর্মঘট। লোকসভা ভোটের মুখে পরপর এই দু’টি ঘটনাকে কেন্দ্র করে রীতিমত চিন্তায় পড়ে গিয়েছে বাজার৷ তবে এই পরিস্থিতি সাময়িক বলেই মনে করছেন বাজার বিশেষজ্ঞরা৷ তবে পরিস্থিতি যাই হোক না কেন, নতুন বছরের শুরুতেই বাজার বেশ নিম্নমুখী৷ কিন্তু এখন প্রশ্ন, এই এই নিম্নমুখী সূচক কি আগামী দিনেও অব্যাহত থাকবে? নাকি ঘুরে দাঁড়াবে শেয়ারবাজার?

এই মুহূর্তে নিফটির চার্ট প্যাটার্ন বলছে, বেশ খানিকটা নিচের দিকেই রয়েছে নিফটি৷ ২১,৮০০-র সর্বোচ্চ গণ্ডি পেরিয়ে এই মুহূর্তে বাজার দাঁড়িয়ে আছে ২১,৫০০ পয়েন্টে৷ লক্ষ্য করলে দেখা যাবে, ২১,৭৪০ পয়েন্ট থেকে বাজার ক্রমাগত নামতে শুরু করেছে। চার্ট অনুযায়ী ২১,৫০০ থেকে ২১,৪১২ পর্যন্ত একটি ক্রুশিয়াল জোন তৈরি হয়ে রয়েছে৷ ওপরের দিকে ২১,৭৪০ পয়েন্ট থেকে ২১,৬৭২ পয়েন্টের মধ্যে নিফটি গত পাঁচ দিনে ঘোরাফেরা করেছে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই  মার্কেট সর্বোচ্চ গণ্ডি কাছাকাছি পৌঁছে গেলেও সেখানে স্থায়ী হতে পারছে না৷

নিফটি অপশন চেনের তথ্য বলছে, ২১,৬০০, ২১,৭০০, ২১৮০০-স্তরে সবথেকে বেশি কল রাইট হয়ে রয়েছে। নিচের দিকে সাপোর্ট হিসাবে ২১,৫০০, ২১,৪০০-স্তরে পুট রাইটিং হয়ে রয়েছে। এই মুহূর্তে পিসিআর ডাটা নেতিবাচক৷ পিসিআর এখন ০.৬২। ফলে পিসিআর ডেটা এই মুহূর্তে মার্কেটকে উপরের দিকে যাওয়ার ইঙ্গিত আপাতত করছে না৷ বিদেশি বিনিয়োগকারীরাও গত দু’দিনে বিনিয়োগ সরাতে শুরু করেছে।

Open Interest - 04 Jan & 11 Jan Expiries

স্বাভাবিকভাবেই এখন প্রশ্ন উঠছে নতুন বছরের শুরুটা ঠিক কিভাবে করতে চাইছে বাজার?

বাজার বিশেষজ্ঞদের ধারণা, এই মুহূর্তে নিফটি নতুন করে ওপরের দিকে চড়তে নাও পারে৷ সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে মার্কেট খানিকটা নামতে পারে বলেই ইঙ্গিত করছেন বাজার বিশেষজ্ঞরা। ফলে এই মুহূর্তে দাঁড়িয়ে কল অপশনের থেকে পুট অপশন বেশি কার্যকরী হতে পারে বলেই মত তাদের৷ তবে মাথায় রাখতে হবে, পুটের পজিশন পরবর্তী দিনের হোল্ড করা খুবই ঝুঁকিপূর্ণ৷ পুট হতে পারে শুধুমাত্র দৈনিক ট্রেডের কৌশল৷

যদি মার্কেট ১৯,৫০০-র ঘর অতিক্রম করে ওপরের দিকে পৌঁছে যায়, তাহলে ২১,৮০০ কাছাকাছি গিয়ে ধাক্কা খেতে পারে৷ এর এরপর ওপরের দিক থেকে ধাক্কা খেয়ে মার্কেট যদি ফের নিচের দিকে নামতে শুরু করে তাহলে ২১,৫০০-এর নিচে সূচক নামলেই পুট বাই বা  বিয়ার কল স্প্রেড হতে পারে আগামী দিনের লাভজনক একটি কৌশল। এরপরেও যদি মার্কেট ২১ হাজারের ঘরের কাছাকাছি থেকে  আরও নিচের দিকে নামতে শুরু করে তাহলে, তাহলে নিশ্চিতভাবে মার্কেটের পতন আরও খানিকটা ত্বরান্বিত হতে পারে বলে মত বাজার বিশেষজ্ঞদের। গ্যাপ আপ ওপেন হলে বাজার ২১,৮০০ ঘর ছুঁয়ে ফের নিচের দিকে নামার প্রবণতা দেখাতে পারে৷

টার্ট

তবে বিশেষজ্ঞদের এটাও অনুমান ২১ হাজার পয়েন্ট থেকে মার্কেট পুনরায় ঘুরে দাঁড়াতে পারে৷ এক্ষেত্রে তখন বাই অন ডিপ কৌশল বেশ কাজে লাগতে পারে৷ কেননা জানুয়ারি শেষ হতে না হতেই ফেব্রুয়ারি মাসের শুরুতেই রয়েছে বাজেট৷ আর বাজেটের আগে কিছু বাজারের প্রত্যাশা অনুযায়ী বাজার ফের খানিকটা চাঙ্গা হতে পারে৷ বাজেট শুরু হওয়ার আগেই রয়েছে রাম মন্দির উদ্বোধন৷ ফলে সামগ্রিক সেন্টিমেন্ট বাজারকে খানিকটা ইতিবাচক ভঙ্গিমায় দেখা যেতে পারে৷  বাজেট শেষ হওয়ার পরপরই শুরু হতে চলেছে বহুল প্রতীক্ষিত লোকসভা নির্বাচন৷ লোকসভা নির্বাচনে স্থায়ী সরকার গঠন হলে বাজার ফের নতুন উচ্চতা নতুন উচ্চতায় পৌঁছে যেতে পারে বলে মত বাজার বিশেষজ্ঞদের৷

মনে রাখা জরুরি, শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ করতে গেলে অবশ্যই টেকনিক্যাল, ফান্ডামেন্টাল এবং ঝুঁকির দিক বিবেচনা করেই হবে৷ ট্রেডিং করার আগে প্রয়োজনে স্টক মার্কেট বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নিন৷ LIVE শেয়ার বাজারে শিক্ষামূলক টেলিগ্রাম চ্যানেলে যুক্ত হতে পারেন আপনিও৷ ট্রেডিং দক্ষতা বাড়াতে যুক্ত হতে পারেন Options Calls - Nifty & Bank Nifty Calls - Index Options Trading-- এই টেলিগ্রাম চ্যানেলে৷ https://t.me/NiftyBankNiftyIndexOptionsCalls

Around The Web

Trending News

You May like