Aajbikel

চৈত্রেই ৪০ ছোঁবে বাংলার উষ্ণতা! গ্রীষ্মের দাপটের মাঝেই বৃষ্টির পূর্বাভাস

 | 
গরম

কলকাতা: বৈশাখ আসার আগেই তপ্ত পশ্চিমবংলা৷ বাংলা ক্যালেন্ডার বলছে, আজ সবে চৈত্র মাসের ১৫ তারিখ। রাজ্যজুড়ে ভরা বসন্ত। কিন্তু আবহাওয়া দিচ্ছে গরমের বার্তা৷ এমনকি মধ্য চৈত্রেই রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রির কাছাকাছি পৌঁছে যেতে পারে বলে আশঙ্কা আবহবিদদের। এখন শুধুই গ্রীষ্মের দাপট দেখার অপেক্ষা। রাজ্যজুড়ে লাফিয়ে বাড়ছে গরম৷ তবে একই সঙ্গে কিছু কিছু এলাকায় রয়েছে বৃষ্টির পূর্বাভাস৷ দক্ষিণের পাশাপাশি বৃষ্টি হবে উত্তরবঙ্গের জেলাগুলিতেও৷

আগামী তিন দিনে তাপমাত্রা তিন ডিগ্রি পর্যন্ত বাড়তে পারে বলে জানাচ্ছে হাওয়া অফিস। ২৯ মার্চ উত্তর-পশ্চিম ভারতে ঢুকে পড়বে পশ্চিমী ঝঞ্ঝা৷ তার জেরেই শুক্রবার সকালে শহরের আকাশ ছিল আংশিক মেঘলা৷ যদিও বেলা বাড়তেই বাড়ে গরমের তেজ৷ আগামী কয়েক দিনে তাপমাত্রা কমার কোনও সম্ভাবনা নেই৷ বরং কিছুটা উর্ধ্বমুখীই থাকবে পারদ৷ শুক্রবার কলকাতায় রাতের তাপমাত্রা ছিল ২৭.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের থেকে তিন ডিগ্রি বেশি। বৃহস্পতিবার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৪.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বৈশাখ আসার আগেই এপ্রিলের গোড়ায় পশ্চিমের জেলাগুলিতে তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রির পারদ ছুঁয়ে ফেলবে বলে পূর্বাভাস হাওয়া অফিসের। বৃহস্পতিবার পানাগড়ের তাপমাত্রা পৌঁছেছিল ৩৭.২ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। এর পাশাপাশি আসানসোল, বাঁকুড়া, বিষ্ণুপুর, বর্ধমান, মেদিনীপুরে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ঢুকে পড়েছিল ৩৫ ডিগ্রির গণ্ডিতে৷ 

এদিকে, কলকাতার উপকণ্ঠে সল্টলেকেই বৃহস্পতিবার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছুঁয়েছিল ৩৫.৯ ডিগ্রির পারদ৷ দমদমের তাপমাত্রা ছিল ৩৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ফলে বসন্তে যে আবহাওয়া আর মনোরম থাকবে না তা বেশ স্পষ্ট৷ বৈশাখ আসার আগেই দক্ষিণবঙ্গে বাড়বে সূর্যের তেজ। হাওয়া অফিস জানাচ্ছে, এপ্রিলের শুরুতেই কলকাতার তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রির কাছাকাছি পৌঁছে যাবে। হাঁসফাঁস করা গরমে নাজেহাল হবে বঙ্গবাসী৷ 

গরমের পাশাপাশি জেলায় জেলায় সমান তালে রয়েছে বৃষ্টির পূর্বাভাস৷ শুক্রবার হালকা বৃষ্টির হতে পারে উত্তর ২৪ পরগনা, পূর্ব বর্ধমান, বীরভূম, মুর্শিদাবাদ এবং নদিয়ায়। শনিবার দক্ষিণবঙ্গের প্রায় সব জেলাতেই বজ্রবিদ্যুৎ-সহ বৃষ্টির পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে৷ সারা সপ্তাহ জুড়েই বিভিন্ন জেলায় বিক্ষিপ্ত ভাবে বৃষ্টি এবং ঝোড়ো হাওয়ার পূর্বাভাস রয়েছে। হাওয়া অফিস জানিয়েছে, নিম্নচাপ অক্ষরেখার কারণে স্থানীয় ভাবে বজ্রগর্ভ মেঘ তৈরি হচ্ছে। যা বৃষ্টির জন্য অনুকূল৷ তবে যতই বৃষ্টি হোক, গরম কিন্তু কমবে না।

Around The Web

Trending News

You May like