×

তাঁর হাতের ঘুগনি-চা ছিল ‘ফেভারিত’, প্রিয় 'রিনাদি'-র স্মতিচারণায় মুখ্যমন্ত্রী

 
mamata

কলকাতা: আচমকাই ব্রেন স্ট্রোকে মারা গিয়েছেন বিধানসভার এক চতুর্থ শ্রেণির কর্মী৷ শুক্রবার বিধানসভা ভবনে স্মারক এবং মিউজিয়ামের উদ্বোধন করতে গিয়ে সেই রিনাদির কথাই স্মরণ করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‘বিধানসভায় কাজ করতে করতে যদি কেউ মারা যান, কেন তাঁদের কথা ভাবব না। আমার খুব মনে পড়ে রিনাদির কথা। আমার ঘরে চা দিত। তাঁকে আমি আলাদা ঘরও করে দিয়েছিলাম। হঠাৎ জানতে পারি রিনাদি ব্রেন স্ট্রোকে মারা গিয়েছেন। আমি খুব কষ্ট পেয়েছি।" সেই সঙ্গে স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে তাঁর আবেদন, ‘‘এতগুলি নতুন ঘর তৈরি হয়েছে৷ কোনও একটা ঘরে যেন তাঁর একটা ছবি রাখা হয়।"

আরও পড়ুন- কেন অতিরিক্ত শূন্যপদ? তৃণমূলের মান্যতা প্রত্যাহারের হুঁশিয়ারি বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের


বিধানসভা সূত্রে খবর, রিনা সামুই ছিলেন চতুর্থ শ্রেণির কর্মী। তিনি প্রথমে রাইটার্স বিল্ডিংয়ে কাজ করতেন। সেখানে পরিষদীয় দফতরে কর্মরত ছিলেন। তাঁকে দেখে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বেশ ভালো লাগে৷ তিনি রিনাকে বিধানসভায় নিয়ে আসেন। রিনাদির হাতে তৈরি ঘুগনি খেতে খুব ভালোবাসতেন মুখ্যমন্ত্রী। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিধানসভায় এলেই ঘুগনি রেঁধে আনতেন তিনি। শুধু তাই নয়,  ঠিক সময় মতো মুখ্যমন্ত্রীকে চা-ও করে এনে দিতেন তিনি। রিনাদির হাতের বিশেষ চা-ও ছিল তাঁর খুব পছন্দের৷ মুখ্যমন্ত্রীর পছন্দের সমস্ত খাবার সম্পর্কে জ্ঞাত ছিলেন রিনা। তাঁর ছেলে ৯৮ শতাংশ নম্বর পেয়ে মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি হয়েছেন। এদিন সে কথাও জানান মুখ্যমন্ত্রী৷ 

From around the web

Education

Headlines