×

জোম্যাটোর ‘ডেলিভারি গার্ল’ পৌলমীর পাশে রাজ্য, চাকরির আশ্বাস ক্রীড়ামন্ত্রী অরূপ বিশ্বাসের

 
জোম্যাটোর ‘ডেলিভারি গার্ল’ পৌলমীর পাশে রাজ্য,  চাকরির আশ্বাস ক্রীড়ামন্ত্রী অরূপ বিশ্বাসের

 কলকাতা: দেশের জার্সি গায়ে জাতীয় দলে খেলেছেন বঙ্গকন্যা পৌলমী অধিকারীর৷ চেয়েছিলেন বড় ফুটবলার হতে। কিন্তু ভাগ্যের অদ্ভূত পরিহাসে খাবারের ঝোলা কাঁধে ছুটতে হয় তাঁকে৷ পেটে বাঁচাতে চাকরি নেন ফুড ডেলিভারি সংস্থা জোম্যাটোতে৷ সময় মতো বাড়ি বাড়ি খাবার পৌঁছে দেওয়াই এখন তাঁর কাজ৷ পরিস্থিতির চাপে একজন প্রফেশনাল ফুটবলার হয়ে যান জোম্যাটোর ডেলিভারি গার্ল৷ তাঁর জীবন সংগ্রামের কথা ইতিমধ্যেই পৌঁছে গিয়েছে বাংলার কোনায় কোনায়। সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে পৌলমী এখন চেনা মুখ৷ তবে দীর্ঘদিনের অপ্রাপ্তির পর এবার ঝুলি পূর্ণ হওয়ার পালা৷ তাঁর পাশে দাঁড়ানোর আশ্বাস দিল রাজ্য সরকার। জাতীয় দলে খেলা এই মহিলা ফুটবলারকে চাকরি দেওয়ার আশ্বাস দেন তিনি। তবে পৌলমীর ইচ্ছা, চাকরি করার পাশাপাশি খেলাটাও চালিয়ে যাওয়া। জানা গিয়েছে, মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশেই পৌলমীর সঙ্গে কথা বলেন রাজ্যের ক্রীড়ামন্ত্রী। পৌলমী যাতে ফের খেলায় ফিরতে পারেন, সেই ব্যবস্থাও করা হবে সরকারের তরফে৷

 

ক্রিড়ামন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস জানিয়েছেন, এদিন সমস্ত নথিপত্র নিয়ে দেখা করতে বলা হয়েছিল পৌলমীকে। তিনি কোথায় কোথায় খেলেছেন, সে সব তথ্য জানতে চাওয়া হয়েছিল৷ সব কিছু দেখার পর তাঁর আশ্বাস, ‘পৌলমী আবার যাতে খেলতে পারেন, তার ব্যবস্থা করব। সরকারের তরফ থেকে সাহায্য করার চেষ্টা করা হবে৷ আমরা ওর পাশে থাকব।’ তাঁর দাবি, ক্রীড়ামন্ত্রী হিসেবে সবসময়েই তিনি খেলোয়াড়ের পাশে থেকেছেন৷  মধ্যরাতে দৌড়ে গিয়েছেন আপদে-বিপদে। তিনি বলেন, ‘খবরটা দেখে আমার খুব খারাপ লেগেছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় চান বাংলা ভাল খেলুক। বাংলা পথ দেখাক।’

 

খুব ছোট বয়সেই মাকে হারিয়েছেন পৌলমী। একমাত্র দিদির বিয়ে হয়ে গিয়েছে। বাবা-মেয়ের সংসার চলে মূলত তাঁর উপার্জনেই৷ বাংলার মেয়ে ভারতের হয়ে খেললেও জাতীয় দলের কোনও মহিলা ফুটবলার, কোচ, এমনকী কর্তারাও মনে করতে পারছিলেন না, কোন পৌলমীর কথা হচ্ছে৷ আসলে সিনিয়র পর্যায়ে ভারতের হয়ে খেলেননি তিনি৷   ২০১৩-তে অনূর্ধ্ব-১৬ জাতীয় দলের জন্য বাংলা থেকে যে তিন ফুটবলারকে ট্রায়ালে পাঠানো হয়েছিল, পৌলমী তাঁদের মধ্যে অন্যতম। ২০১৬ সালে ভারতের হয়ে খেলেছেন ‘হোমলেস বিশ্বকাপে’। বেহালার মেয়ে পৌলমীর জীবন সংগ্রাম এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল৷ এর পরেই রাজ্যের ক্রীড়ামন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস তাঁকে ডেকে পাঠান৷ সেখানে পৌঁছনের পর পৌলমী বলেন, “আমার একটা চাকরির খুব দরকার। আর কাজের পাশাপাশি খেলাটাও চালিয়ে যেতে চাই। আবারও জাতীয় দলের হয়ে মাঠে নামচে চাই৷’’ তাঁর পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছে রাজ্য সরকার৷

From around the web

Education

Headlines