teacher

কলকাতা: শিক্ষক নিয়োগে ‘দুর্নীতি’৷ ফের কলকাতা হাইকোর্টে বড়সড় ধাক্কা খেল স্কুল সার্ভিস কমিশন৷ এবার, শিক্ষশক নিয়োগে অনিয়মের ব্যাখ্যা চেয়ে এবার সরাসরি হস্তক্ষেপ করল কলকাতা হাইকোর্ট৷ খোদ স্কুল সার্ভিস কমিশনকে রিপোর্ট তলবের নির্দেশ দিয়েছেন কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি রাজর্ষি ভরদ্বাজ৷

নবম-দশম ও একাদশ-দ্বাদশে শিক্ষক নিয়োগের দুর্নীতির অভিযোগ তুলে মামলা করেন ১৯জন চাকরিপ্রার্থী৷ সেই মামলার শুনানিতে স্কুল সার্ভিস কমিশনের কাছে রিপোর্ট চেয়ে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট৷ আগামী ১৬ ডিসেম্বরের মধ্যে হাইকোর্টে জমা দিতে হবে পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট৷ জানিয়ে দিয়েছে উচ্চ আদালত৷ কলকাতা হাইকোর্ট সূত্রে খবর, কম নম্বর পাওয়া সত্ত্বেও কোন কোন প্রার্থীকে নিয়োগপত্র দেওয়া হয়েছে? কোন পদ্ধতিতে এই নিয়োগপত্র দেওয়া হয়েছে? তা জানাতে হবে আদালতকে৷

১৯ জন মামলাকারী চাকরিপ্রার্থীদের দাবি, তাঁরা বেশি নম্বর পাওয়া সত্ত্বেও স্কুল সার্ভিস কমিশন তাঁদের কাউন্সেলিংয়ে বিলম্বে ডাকা হয়েছে৷ ফলে বেশি নম্বর পাওয়া সত্ত্বেও প্রথমদিকের সুবিধাজনক স্কুলগুলি তারা পাননি৷ এমনকি কম নম্বর পাওয়া চাকরীপ্রার্থীদের আগে ডেকে বাড়তি সুযোগ দেওয়ার অভিযোগ তুলেছেন মামলাকারীরা৷

এই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে আজ ছিল কলকাতা হাইকোর্টে মামলার শুনানি হয়৷ দীর্ঘ শুনানির পর কলকাতা হাইকোর্টের কমিশনকে পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট পেশের নির্দেশ দিয়েছে৷ কীভাবে, কম নম্বর পাওয়া চাকরিপ্রার্থীদের ডাকা হল? কাউন্সেলিংয়ের বিষয়ক পূর্ণাঙ্গ ব্যাখ্যা চাওয়া হয়েছে বলে আদালত সূত্রে খবর৷

২০১৬ সালের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরে ওয়েটিং লিস্টে থাকা প্রার্থীদের কাউন্সেলিং প্রক্রিয়া ঘিরে প্রশ্ন তোলেন মামলাকারীরা৷ তাঁদের অভিযোগ ছিল, তাঁদের থেকে কম নম্বর পাওয়া প্রার্থীদের কমিশন কাউন্সেলিংয়ে ডেকেছে৷ কিন্তু, সুযোগ থেকে বঞ্চিত৷ কেন এই বঞ্চনা? মেধাতালিকায় নীচে থাকা প্রার্থীদের কেন প্রথমের দিকে সুযোগ? এই প্রশ্ন তুলে মামলা গড়ায় আদালতে৷ সেই মামলার শুনানিতে কমিশনকে রিপোর্ট পেশের নির্দেশ দিয়েছেন কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি রাজর্ষি ভরদ্বাজ৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here