কলকাতা: ঘরের মধ্যে ঘর হবে না৷ খড়্গপুর সদর উপনির্বাচনে পদ্মচিহ্ন প্রতীকে বিজেপির একমাত্র প্রার্থী হলেন প্রেমচাঁদ ঝা – বিজেপি তাঁকেই সমর্থন করবে বলে পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছেন রাজ্যের অন্যতম পর্যবেক্ষক অরবিন্দ মেনন৷ উপনির্বাচনে খড়্গপুর কেন্দ্রে রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের বাছাই করা প্রার্থী প্রেমচাঁদকে নিয়ে অবশ্য বিতর্ক তুঙ্গে৷ যা খবর, মেনন সাফ জানিয়ছেন, দলের ভিতরে ‘ঘরের ভিতর ঘর’ তৈরি করলে বিদ্রোহী নেতাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হতে পারে৷

শোনা যাচ্ছে, অস্ত্র, জমি, তোলাবাজি সহ একাধিক অভিযোগ রয়েছে প্রেমচাঁদের বিরুদ্ধে৷ পুলিশ তাঁকে যেকোনও সময়ে গ্রেফতার করতে পারেন এই আশঙ্কায় স্থানীয় আরএসএস কর্মী এবং বিজেপির জেলা সভাপতি শমিত দাসকেও তৈরি রাখা হয়েছে৷ প্রেমচাঁদ এবং শমিত দুজনেই মনোনয়ন জমা দিয়েছেন৷ প্রেম যদি গ্রেফতার হন তবে শমিতই প্রার্থী হবেন৷ প্রচারে দুজনকেই সঙ্গে নিয়ে ঘুরছেন দিলীপ৷

ঘটনা হল, প্রেমচাঁদের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ থাকা স্বত্ত্বেও, তাঁর নাম ঘোষণা হওয়ায় পশ্চিম মেদিনীপুরে বিজেপির অনেকেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন৷ যাঁরা প্রত্যাশিত প্রার্থী ছিলেন তাঁরা ফুঁসতে থাকেন৷ যা খবর, অনেকেই বিদ্রোহ ঘোষণার পক্ষে ছিলেন, কিন্তু দলের সাংগঠনির জোর তাঁদের কথা বলতে দেয়নি৷ কিন্তু, দলের পুরানো এবং এলাকায় মানুষ হিসাবে পরিচিত প্রদীপ পট্টনায়েক ‘বিজেপি বাঁচাও কমিটি’ নামে একটি সংগঠন তৈরি করেন৷ তিনি, প্রেমচাঁদের বিরুদ্ধে নির্দল প্রার্থী হিসেবে মনোনযনপত্র জমা দিয়েছেন৷

মনে রাখা প্রয়োজন মেদিনীপুরে দিলীপ ঘোষের বিরুদ্ধে এই অসন্তোষ নতুন নয়৷ লোকসভা নির্বাচনেও এক প্রাক্তন বিজেপি কর্মী অশোক সরকার দিলীপকে হারাতে উদ্যত হন৷ তিনি শিবসেনার টিকিটে মেদিনীপুর থেকে লড়াই করলেও কিছুই অবশ্য করতে পারেননি৷ তবে দিলীপের গড় মেদিনীপুরেই দিলীপের বিরুদ্ধে অসন্তোষকে ভালো চোখে দেখছে না বিজেপি৷ সূত্রের থবর ঘনিষ্ট মহলে অরবিন্দ মেনন বলেছেন, দিলীপ ঘোষের ঠিক করা প্রার্থী-ই বিজেপির প্রার্থী৷ যারা দলের বিতরে থেকে দলের প্রার্থীকে সমর্থন করছেন না – তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হতে পারে৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here