Indian students will not have skills for jobs, warns UNICEF

নয়াদিল্লি: বাংলার শাসকদল তৃণমূল ও বাম-কংগ্রেসের বিদ্রোহের জেরে অবশেষে পিছু হটল ন্যাশনাল টেস্টিং এজেন্সি বা এনটিএ৷ সর্বভারতীয় জয়েন্ট এন্ট্রান্সে কেন বাংলা ভাষায় পরীক্ষা নেওয়া হবে না? রাজ্যের প্রশ্নের মুখে পড়ে অবশেষে নিজেদের অবস্থান স্পষ্ট করল বড় ঘোষণা এনটিএ’র৷

বোর্ডের তরফে সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, ২০২১ সালের জয়েন্ট পরীক্ষা নেওয়া যাবে বাংলা ভাষায়৷ বাংলা-সহ অসমিয়া, উর্দু, মারাঠি, ওড়িশার মতো দেশের আরও ১১টি আঞ্চলিক ভাষায় দেওয়া যাবে সর্বভারতীয় জয়েন্ট এন্ট্রান্স পরীক্ষা৷ ২০২১ সাল থেকে বাংলা-সহ ১১টি আঞ্চলিক ভাষায় সর্বভারতীয় জয়েন্ট এন্ট্রান্সে প্রশ্নপত্র থাকবে বলেও সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে৷

ইংরেজি, হিন্দি, গুজরাটিতে সর্বভারতীয় জয়েন্ট এন্ট্রান্সের প্রশ্নপত্র করা হবে বলে আগেই ঘোষণা করেছিল ন্যাশনাল টেস্টিং এজেন্সি বা এনটিএ৷ এর বিরুদ্ধে রাজনৈতিক ময়দানে নেমেছিল তৃণমূল, বাম-কংগ্রেস৷ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেও বোর্ডকে দিয়েছিলেন চিঠি৷ রাজ্যের শিক্ষাদপ্তরও বোর্ডকে চিঠি পাঠিয়ে বাংলায় প্রশ্নপত্র করার আর্জিও জানিয়েছিল৷ চলতি শীত অধিবেশনেও এই নিয়ে সরব হয় তৃণমূল৷ পাল্টা ন্যাশনাল টেস্টিং এজেন্সি বা এনটিএ জানিয়ে দেয়, পশ্চিমবঙ্গ নির্দিষ্ট সময়ে আবেদন না করায় বাংলায় প্রশ্নপত্র তৈরির বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া যায়নি৷ পরে, বোর্ডের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, ২০২১ সালের বাংলা-সহ ১১টি আঞ্চলিক ভাষায় সর্বভারতীয় জয়েন্ট এন্ট্রান্সে প্রশ্নপত্র থাকবে৷

সর্বভারতীয় জয়েন্ট এন্ট্রান্স পরীক্ষায় ইংরাজি ও হিন্দি ভাষার পাশাপাশি সম্প্রতি আঞ্চলিক ভাষা হিসেবে গুজরাটি ভাষাকেই অন্তর্ভুক্ত করে ন্যাশনাল টেস্টিং এজেন্সি বা NTA৷ আঞ্চলিক ভাষাগুলির মধ্যে শুধু গুজরাটি কেন প্রাধান্য পেল, তা নিয়ে ইতিমধ্যেই প্রশ্ন তুলেছে তৃণমূল৷ বিরোধিতায় সরব হয়েছে বাম, কংগ্রেস-সহ অন্যান্য বিরোধী দল এমনকি বাংলার ছাত্র-ছাত্রীরাও৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here