কলকাতা: এনআরএসর কাণ্ডের প্রতিবাদে এবার জুনিয়ার চিকিৎসকদের পাশে দাঁড়ালেন কৌশিক সেন থেকে শুরু করে অপর্ণা সেনা৷ চিকিৎসকদেক আন্দোলনকে সমর্থন বুদ্ধিজীবীদের একাংশের৷ আজ দুপুরে এনআরএসে গিয়ে চিকিৎসক পাশে দাঁড়ি রাজ্যের ভূমিকা নিয়ে সমালোচনা করেন কৌশিক-অপর্ণা৷

এদিন কৌশিক সেন বলেন, ‘‘আজ দেখছি, খেলা মেলার জন্য টাকা দেওয়া হচ্ছে৷ ক্লাবকে টাকা দেওয়ার টাকা আছে, কিন্তু, স্বাস্ব্য খাতে কেন বরাদ্দ হচ্ছে না? কেন তাঁদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হচ্ছে না৷’’ অপর্ণা সেন বলেন, ‘‘আমার একটাই অনুরোধ, মুখ্যমন্ত্রী আপনি এনআরএসে এসে এদের সঙ্গে কথা বলুন৷ এতে সমস্যাটা কোথায়? আপনিতো এঁদের অভিভাবক৷ সমস্যা সমাধান না করে হুঁমকি দেওয়াটা কি হচ্ছে? এরা যদি রাজ্য ছেড়ে চলে যান, তাহলে কি ভাল হবে?’’

অন্যদিকে, মুখ্যমন্ত্রীর হুঁশিয়ারি, রাজ্যপালের আর্জির পর আজও স্বাভাবিক হল না স্বাস্থ্য পরিষেবা৷ কর্মবিরতিতে অনড় জুনিয়র ডাক্তাররা৷ আজ সকাল থেকে এসএসকেএম হাসপাতালের জরুরি বিভাগ চালু হলেও বন্ধ আউটডোর৷ এনআরএসেও একই পরিস্থিতি৷ এনআরএসের গেট আগলে রখেছেন আন্দোলনকারী জুনিয়র ডাক্তাররা৷ জানা গিয়েছে, আজ সকাল থেকেই আরজিকর হাসপাতালে বন্ধ জরুরি বিভাগ৷ রোগী ফিরিয়ে দেওয়ার অভিযোগ৷ জেলার হাসপাতালগুলিতেও একই পরিস্থিতি লক্ষ্য করা গিয়েছে৷

অন্যদিকে, এনআরএস কাণ্ডের প্রতিবাদে চলছে ডাক্তারদের গণইস্তফার পর্ব৷ এনআরএস হাসপাতালের মেডিক্যাল সুপারিনটেন্ডেন্ট ও ভাইস প্রিন্সিপাল সৌরভ চট্টোপাধ্যয় ও প্রিন্সিপাল শৈবাল মুখোপাধ্যায় বৃহস্পতিবার রাতেই  পদত্যাগপত্র পাঠিয়ে দিয়েছেন স্বাস্থ্যভবনে৷ পদত্যাগপত্রে তাঁরা জানিয়েছে, সরকারের দেওয়া দায়িত্ব পালন করতে তাঁরা ব্যর্থ৷ তাই এই সিদ্ধান্ত৷

শোনা যাচ্ছে, আজ এনআরএস হাসপাতাল থেকে আরও ১৬ জন সিনিয়র চিকিৎসক ইস্তফা দিতে চলেছেন৷ তবে তা এখনও চূড়ান্ত কিছু জানানো হয়নি৷ গণ ইস্তফার পথে হাঁটতে পারেন আলিপুরদুয়ারের জেলা হাসাপাতালের চিকিৎসকরাও৷ সিউড়ি হাসপাতালে ৪৬ জন চিকিৎসক ইস্তফা দেওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন৷ সাগর দত্ত হাসপাতালেও ২০ জন ডাক্তারের গণইস্তফা দিয়েছেন৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here