কলকাতা: সদ্য মিটেছে ভুল বোঝাবুঝি৷ দলের তরফেও দেওয়া হয়েছে শেষ সুযোগ৷ ঢাকঢোল পিয়ে সাংবাদিক বৈঠক করেও ভুল স্বীকার করে দিয়ে দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপর আনুগত্যও দেখিয়েছেন৷ কিন্তু, ভুল বোঝাবুঝি মিটতেই ফের ইঙ্গিতপূর্ণ মন্তব্য করেন বিধাননগরের মেয়র সব্যসাচী দত্ত৷

বিজেপি নেতা মুকুল রায় যদি ফের তাঁর বাড়িতে গিয়ে লুচি-আলুরদম খেতে চাইলে তাঁকে স্বাগত৷ বৃহস্পতিবার বারাসতে একটি রাজনৈতিক মামলায় হাজিরা দিতে গিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে এই মন্তব্য করেন বিধাননগরের মেয়র সব্যসাচী দত্ত। জানান, লুচি-আলুরদমের সঙ্গে তৃণমূলের কোনও সম্পর্ক নেই৷ শুধু মুকুল রায় নন, যে কেউ লুচি, আলুরদম খেতে চাইলে তাঁকেই খাওয়াবেন। তবে, লুচি-আলুরদম তৈরির জন্য একটু সময় দিতে হবে৷

এদিন রায়চকে শোভন চট্টোপাধ্যায় ও বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে ঘিরে বিক্ষোভ প্রসঙ্গে সব্যসাচী বলেন, এই ধরনের উচ্ছৃঙ্খলা তিনি সমর্থন করেন না। কারও ব্যক্তিগত বিষয়ে ঢুকতেও চান না৷ অর্জুন সিংয়ের দিল্লি যাত্রা প্রসঙ্গে সব্যসাচী মত, ‘‘কাজ থাকলে আমিও দিল্লি যাব৷’’

গত ১০ মার্চ সমস্ত জল্পনায় জল ঢেলে মেয়র সব্যসাচী দত্তকে পাশে দাঁড় করিয়ে মুকুলকে আক্রমণ করেন ফিরহাদ হাকিম৷ দলবদলের জল্পনায় জল ঢেলে মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে তোপ দাগেন ফিরহাদ৷ বিধাননগরে দলের জরুরি বৈঠক শেষে ফিরহাদ হাকিম বলেন, ‘‘ভিক্ষের ঝুলি নিয়ে ঘুরে বেরাচ্ছে মুকুল রায়৷ শুক্রবার বিনা নেমন্ত্রণে সব্যসাচীর বাড়িতে গিয়েছিল মুকুল রায়৷ পূর্বের সম্পর্ক থাকার কারণে তাঁকে ফিরিয়ে দিতে পারেনি সব্যসাচী৷ কিন্তু, ও বুঝতে পারেনি মুকুল রায় তাঁর বাড়িতে খেয়ে গিয়ে সংবাদ মাধ্যমে দলবদলের জঙ্গলনা বাড়াবে৷ সংবাদমাধ্যম এই বিভ্রান্তি তৈরি করেছে৷’’

রবিবার দীর্ঘ বৈঠকের পর সব্যসাচী দত্ত গত শুক্রবার রাতের গোটা ঘটনার কথা সংবাদমাধ্যমের সামনে তুলে ধরেন৷ বলেন, ‘‘আমি তৃণমূলেরই ছিলাম৷ তৃণমূলেই আছি৷’’ এদিন ঠিক কী কারণে মুকুল রায় তাঁর বাড়িতে গিয়েছিলেন, তাও ব্যাখ্যা দেন তিনি৷ সূত্রের খবর, শুক্রবার রাতের ঘটনায় দলের অন্দরে তিনি ভুল স্বীকার করেন৷

শুক্রবার সন্ধ্যায় বিধাননগরের মেয়র সব্যসাচী দত্তের বাড়িতে যান বিজেপি নেতা মুকুল রায়৷ প্রায় দেড় ঘণ্টা সব্যসাচীর বাড়িতে মুকুল ছিলেন বলে জানা গিয়েছে৷ মুকুল রায় তৃণমূল কংগ্রেসে থাকাকালীন তাঁর অন্যতম ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত ছিলেন সব্যসাচী দত্ত৷ তবে এদিন সব্যসাচী দত্তর বাড়িতে যাওয়ার সঙ্গে রাজনীতির কোনও যোগ নেই বলে পরে সাংবাদিকদের দাবি করেছেন মুকুল৷ তিনি বলেন, ‘‘সব্যসাচী আমার ভাইয়ের মতো। আমাদের মধ্যে দাদা-ভাইয়ের সম্পর্ক৷ খিদে পলেই এখানে আসি এই বাড়িতে৷ লুচি আলুর দম খেয়েছি৷ ছানার জিলিপি খেয়েছি৷ রাজনীতির কোনও আলোচনা হয়নি৷’’ মুকুল-সব্যসাচী সাক্ষাৎ ঘিরে তৃণমূল-বিজেপির অন্দরে শুরু হয় কানাঘুষো৷  গোটা বিষয়টি পর্যবেক্ষণের জন্য জরুরি ভিত্তিতে বৈঠকে বসে তৃণমূল৷

Loading...
Loading...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here