আজ বিকেল: মাধ্যমিক পরীক্ষা৷ ইংরেজি৷ শিরদাঁড়ায় ঠাণ্ডা স্রোত৷ কিন্তু এই পেপারেই সব থেকে বেশি নম্বর পাওয়া সম্ভব৷ পরীক্ষা দেওয়ার আগে আর দেওয়ার সময়ে কিছু স্ট্র্যাটেজি হোম ওয়ার্ক করে গেলে অনায়াসে এই বৈতরনি পার হওয়া যায়৷

প্রথমেই বলি, আমরা এখন যে ভাষায় কথা বলি, তার অনেকটাই ইংরেজি৷ বাক্য না হলেও শব্দ তো বলেই থাকি, তাই না ? সবটাই তো আর না বুঝে নয়৷ একটা কিছু ইংরেজিতে পড়লে তার কিছুই বোধগম্য হয় না এমন তো নয়৷ তাহলে কিন্তু ইংরেজি পরীক্ষা নিয়ে ভয়ের কোনও কারণই নেই৷ ৯০ নম্বরের মধ্যে ৪০ নম্বর শুধু পড়ে বুঝে উত্তর দেওয়ার জন্য , যার মধ্যে আবার ২০ নম্বর চেনা , মানে টেক্সট বই থেকে , আর বাকিটা ‘দেবা -না -জানন্তি ’, মানে অজানা -অদেখা বা ‘আনসিন ’৷ এই অজানা অংশটা সাধারণত কোনও খবরের কাগজের রিপোর্ট বা কোনও গদ্যাংশ থেকে দেওয়া হয়৷

তোমরা তো গল্পের বই পড়৷ এটাও একটা ছোটো গল্পের মতই৷ সহজ কথায় তোমাদের নিজের মন এবং মস্তিষ্ক থেকে এই চিন্তাটা বাদ দাও যে তুমি একটা অজানা বিদেশি ভাষায় পরীক্ষা দিতে যাচ্ছ৷ ইংরেজি পরীক্ষা দেওয়া একটা মানসিক লড়াই৷ আগে থেকে নিজেকে অভ্যস্ত করে রাখলে এই লড়াই একটা গেম এর মত মনে হবে৷ প্রথমত , মনে রাখতে হবে এখানে কোনও অপশান বা চয়েস থাকে না৷ দ্বিতীয়ত , প্রশ্নপত্রেই উত্তর , সীমিত স্থানে৷ তৃতীয়ত , কোন বিভাগে কতটা সময় দেবে , সেটার হোম -ওয়ার্ক থাকা ভীষণ জরুরি৷ আর সব শেষে , রিভিশন টাইম রাখা আবশ্যিক৷ বিভাগ অনুযায়ী আলোচনায় আসা যাক৷

Loading...
Loading...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here