9 Things To Keep In Mind When You Have Decided To Get A Pet

আজ বিকেল: কুকুরের প্রতি মানুষের একটা ভালবাসা রয়েছে। তাই অনেকেই বাড়িতে পোষ্য হিসেবে কুকুরকে নিয়ে আসেন। কুকুর বিভিন্ন প্রজাতির হয়। তবে কুকুরকে পোষ্য হিসেবে রাখতে চাইলে বেশ কিছু নিয়ম মানতে হবে। নাহলে পোষ্য রাখার কোনও যুক্তি নেই।

কুকুর কিনতে গেলে প্রথমে কুকুর নিয়ে একটু পড়াশোনা করে নেওয়াটা খুব জরুরি। বিভিন্ন প্রজাতির বিদেশি কুকুর রয়েছে সেই কুকুরগুলো কোন আবহাওয়ায় থাকতে পারে কি ধরনের খাবার খায় তাদের সঙ্গে কী ধরনের ব্যবহার করা হয় সেগুলো সমস্ত আপনাকে জানতে হবে। তারপর পছন্দসই কুকুরটিকে আপনি কিনে আনতে পারেন। তবে কিনে আনার দরকার নেই , তার থেকে দত্তক নেওয়া ভাল। দত্তক নেওয়া কুকুর অনেক বেশি প্রশিক্ষিত হয় এবং তাকে মানিয়ে নেওয়া সহজ হয়।তাই পোষ্যকে বাড়িতে আনবার আগে ভালো করে দেখে নিন কোন প্রজাতির কুকুর আপনার সঙ্গে মানিয়ে নিতে পারবে ,আপনার লাইফ স্টাইলে সঙ্গে সে তার নিজের জীবন বিধি ও মানিয়ে নিয়ে থাকতে পারবে তাকেই বেছে নিন।



এবার ফিরে আসি কুকুর প্রসঙ্গে। যদি কুকুরকে পোষ্য হিসেবে পেতে চান তাহলে অবশ্যই কুকুরের খাবার দাবারের বিষয়ে আপনাকে নজর রাখতে হবে। তাকে কখনোই চকলেট বা দুধ জাতীয় খাবার দেবেন না।এগুলো সে হজম করতে পারে না।এগুলো তার জন্য ক্ষতিকারক।কুকুরের নির্দিষ্ট একটা খাবারের নিয়ম রয়েছে। সকাল বিকেল যখন মন চাইলো তাকে খাইয়ে দিলাম তা নয়। তার জন্য একটা নির্দিষ্ট ডায়েট চার্ট বানান। পোষ্য বাড়িতে আনার পর তার জন্য নির্দিষ্ট ডায়েট চার্ট তৈরি করুন।অভ্যস্ত করে তুলুন সেই ডায়েট চার্টে। একবার অভ্যস্ত হলে তার খাবার নিয়ে আপনাকে বেশি ভাবতেই হবে না। শুধু খাবারই বা বলি কেন যখন আপনি কুকুর কিনছেন তখন তো কোনও এনজিও থেকেই নিতে পারেন। কারণ এই স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা গুলোর কাছে তো ভালই থাকে। বিভিন্ন ধরনের স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা রয়েছে। কিছু রয়েছে যারা বিভিন্ন জায়গা থেকে পশুদের উদ্ধার করে নিয়ে আসে সেই সব সংস্থার কর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ করুন অথবা যারা পশু কল্যাণের কাজ করে থাকে। এইসব সংস্থা থেকে কুকুর নিলে তাকে পোষ মানানোর কাজ অনেক বেশি সুবিধাজনক।

কুকুর কিনতে যাওয়ার আগে ঠিক করে নিন তাকে রাখবেন কোথায়।সে জন্য একটা আলাদা বাড়ি বানাতে পারেন।বাড়ি বলতে কুকুরের বাড়ি , সেটা আপনার নিজের শোবার ঘরে হতে পারে। আপনার বসার ঘরে হতে পারে , বারান্দায়ও হতে পারে। যেখানে আপনি সুবিধে মনে করবেন সেখানে তার নির্দিষ্ট একটি শোয়ার জায়গা থাকবে। প্রথম দিন থেকেই তাকে এমন প্রশিক্ষণ দিন যাতে সে তার জন্য নির্দিষ্ট জায়গায় ঘুমোতে যেতে পারে।একইভাবে তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করে রাখুন।আগের থেকে একজন ভালো পশু চিকিৎসকের খোঁজ নিয়ে রাখুন। কেননা যে কোনও সময় আপনার পোষ্য অসুস্থ হতে পারে তখন তাকে যেন সঠিক চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়া হয় তা নিশ্চিত করুন। আপনার পরিচিতির মধ্যে কেউ যদি কুকুর পুষে থাকে তাহলে তার কাছ থেকে চিকিৎসকের খবর পেতে পারেন।

তবে খেয়াল রাখবেন প্রচুর ভুয়া চিকিৎসক রয়েছেন যাদের দেওয়া ভুল ওষুধে প্রিয় পোষ্য র জীবনহানি পর্যন্ত ঘটতে পারে।খাওয়া শোয়া অসুস্থতা তো হল এবার ওকে নিয়মিত স্নান করান।বাথরুমে নিয়ে গিয়ে তাকে শ্যাম্পু করিয়ে সতেজ রাখুন।বলাবাহুল্য , আপনার পোষ্য কিন্তু ঘুরতে যেতে চায় আপনি অফিস থেকে ফিরেছেন ক্লান্ত। আপনার পক্ষে যাওয়া সম্ভব নয়, কিন্তু ছুটির দিনে তাকে নিয়ে বাইরে বেরোন। পার্কে যান যদি সময় থাকে। প্রতিদিন কোনও এক সময়ে তাকে বাইরে বের করুন তাকে নিয়ে হাঁটতে যাওয়া খুব জরুরি। তবে কুকুর রোদ্দুর বেশিক্ষন সহ্য করতে পারেনা তাই রোদ্দুরে নিয়ে গেলে ফিরে এসে ঠান্ডায় রাখুন।কুকুর সুস্থ থাকবে আপনার বাধ্য হবে আপনার কথা মেনে চলবে। যে বাড়িতে কুকুরকে রাখছেন দেখবেন সেই বাড়ি যেন কুকুরের উপযোগী হয়। যদি আবাসনে থেকে থাকেন আর তা যদি উপরের তলায় হয়ে থাকে অবশ্যই ব্যালকনিতে গ্রিল লাগিয়ে রাখুন। না হলে যেকোনো সময় সে নিচে পড়ে যেতে পারে। একইভাবে বড় বাড়ি হলে বাউন্ডারি ওয়ালের গেটে তালা দিয়ে রাখুন।না হলে যেকোনো সময় বাড়ির বাইরে বেরিয়ে যেতে পারে আপনার কুকুর। পাড়ায় অপরিচিত হলে রাস্তা চিনে সে আর বাড়িতে ফিরতে পারবে না।

এই সংক্রান্ত আরও খবর জানতে ফেসবুক পেজ লাইক করুন facebook.com/Aajbikal ও aajbikel.com-এ ক্লিক করুন

Loading...
Loading...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here