আজ বিকেল: দু’বছরের ডিএলএড কোর্সের তিন বছরের বেশি সময় পার হয়ে গেলেও পশ্চিমবঙ্গ প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের ‘উদাসীনতার’ জেরে চূড়ান্ত সমস্যায় পড়েছেন ২০১৫-২০১৭ ডিএলএড ব্যাচের পড়িুয়ারা৷ দুই বছরের নির্দিষ্ট সময়সীমা পার হয়ে যাওয়ার পর পর্ষদ চাপের মুখে পার্ট টু ফাইনাল পরীক্ষা নিতে বাধ্য হয়েছিল, তারপর আজ আট মাস কেটে গেলেও আজও তারা পার্ট টু-এর ফাইনাল রেজাল্ট প্রকাশ করেনি। NCTE-এর নির্দেশিকায় স্পষ্টভাবে উল্লেখ আছে কোনোভাবেই এই কোর্সকে শেষ করতে দু’বছরের অতিরিক্ত সময় নেওয়া যাবে না, কিন্তু পর্ষদ সেই নির্দেশিকাকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের ভবিষ্যৎ নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে।

অন্যান্য সমস্ত রাজ্যগুলিতে ও RCI স্বীকৃত প্রতিষ্ঠানে কোর্সটিকে নির্দিষ্ট ২ বছরের মধ্যেই শেষ করে দেওয়া হচ্ছে৷ এরফলে এই রাজ্যের ছাত্রছাত্রীরা তাদের তুলনায় ভীষণভাবে পিছিয়ে পড়ছে। উল্লেখযোগ্য-ভাবে বলা যায় এই রাজ্যেই একই সময়ে সেশন শুরু করে বিএডদের পরপর দুটো ব্যাচের সেশন শেষ হয়ে সার্টিফিকেট ও রেজাল্ট হাতে পেয়ে গেলেও ২০১৫-২০১৭ ডিএলএড ব্যাচের ছাত্রছাত্রীরা ৩ বছরেরও অধিক অন্তে এখনও ফাইনাল রেজাল্টই হাতে পেল না। এই রাজ্যে টেট পরীক্ষার কোনো নিয়মনীতি নেই, সেক্ষেত্রে তাদের ভরসার জায়গা Central Tet৷ কারণ তারা নিয়ম মেনে প্রতি বছর নিয়োগের পরীক্ষা গ্রহণ করে। যাদের বয়সসীমা পার হয়ে যাচ্ছে তারা চরম উদ্বিগ্ন! লক্ষ লক্ষ টাকা খরচ করেও তারা আজ দুচোখে অন্ধকার দেখছে। ইতিমধ্যেই সি টেটের বিজ্ঞপ্তি বেরিয়ে গেছে, পর্ষদের খামখেয়ালিপনায় ২০১৫-২০১৭ ডি এল এড ব্যাচ গতবারও সি টেটে Apply করতে পারেনি, ৩ বছর পরেও এখনও তাদের ফল না মেলায় এবারও তারা Trained হিসেবে টেটের ফর্ম পূরণ করতে পারছে না। এই পরিস্থিতিতে ক্ষোভে ফেটে পড়া ছাত্রছাত্রীরা আজ প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ ভবনের সামনে অবস্থান বিক্ষোভের কর্মসূচিতে নামছে। এপিসি ভবনের সামলে চলবে বিক্ষোভ অভিযান৷ বেলা ১১ টায় ময়ূখভবনে জমায়েত হওয়ার কথা রয়েছে৷ সেখান থেকেই অচার্য সদন ঘেরাও কর্মসূচি রয়েছে পড়ুয়াদেকর৷

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পর্ষদের এক কর্মী জানিয়েছেন, ২০১৫-২০১৭ ডিএলএড ব্যাচের ফল ৫ মাস আগেই তৈরি হয়ে গেছে৷ কিন্তু উপর মহলের কর্মকর্তাদের নির্দেশ ছাড়া ফল প্রকাশ করা যাচ্ছে না। অপর দিকে ছাত্রছাত্রীদের একটি অংশ রেজাল্ট প্রকাশ করার জন্য উচ্চ আদলতের দ্বারস্থ হয়, সেই মামলায় Case No:WP 2725(W) of 2018 মহামান্য হাই কোর্ট ২০১৫-২০১৭ ডিএলএড ব্যাচের ফল প্রকাশের কড়া নির্দেশ দেয় কিন্তু পর্ষদ সেই নির্দেশ অমান্য করে আদলত অবমাননা করে। দিশেহারা ছাত্রছাত্রীরা কোনো কূল খুঁজে পাচ্ছে না, এব্যাপারে তারা শিক্ষামন্ত্রীর হস্তক্ষেপ দাবী করছে।

Loading...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here