নয়াদিল্লি ও গাজিয়াবাদ : টানা ১২ দিন পর অবশেষে সাফল্য পেল দিল্লি পুলিশ| উত্তর প্রদেশের গাজিয়াবাদে অপহরণকারীদের গোপন ডেরা থেকে পাঁচ বছর বয়সি শিশু রেহানকে উদ্ধার করতে সক্ষম হলেন দিল্লি পুলিশের কর্তারা| প্রজাতন্ত্র দিবসের প্রাক্কালে গত ২৫ জানুয়ারি, রোমহর্ষক ঘটনা ঘটেছিল দিল্লির দিলশাদ গার্ডেন এলাকায়| স্কুলবাসের চালককে লক্ষ্য করে গুলি চালিয়ে প্রথম শ্রেণির পড়ুয়া রেহানকে অপহরণ করে চম্পট দুই আততায়ী| গোটা ঘটনাটি ঘটেছিল প্রকাশ্য দিবালোকে| রেহানকে অপহরণ করার পরই উত্তর প্রদেশের দিকে পালিয়ে যায় আততায়ীরা|

টানা ১২ দিন পর অবশেষে সাফল্য পেল দিল্লি পুলিশ| উত্তর প্রদেশের গাজিয়াবাদে অপহরণকারীদের গোপন ডেরা থেকে রেহানকে উদ্ধার করতে সক্ষম হলেন দিল্লি পুলিশের কর্তারা| সুস্থ এবং অক্ষত অবস্থায় রেহানকে তুলে দেওয়া হয়েছে তাঁর পরিবারের হাতে| ছেলেকে ফিরে পেয়ে নিশ্চিন্ত রেহানের বাবা-মা| দিল্লি পুলিশের পদস্থ এক কর্তা জানিয়েছেন, গভীর রাত (মঙ্গলবার) একটা নাগাদ শালিমার গার্ডেন এলাকার একটি অ্যাপার্টমেন্টের ৬ তলার একটি ফ্ল্যাটে হানা দেয় দিল্লি পুলিশের অপরাধ দমন শাখার বিশেষ দল| অভিযান চলাকালীন অপহরণকারীরা আচমকা গুলি চালালে এক পুলিশ কর্মীর শরীরে গুলি লাগে, তবে তিনি বুলেট প্রুফ জ্যাকেট পরে থাকায় প্রাণে বেঁচে গিয়েছেন|

 পুলিশের পাল্টা গুলিতে খতম হয়েছে রবি নামে এক অপহরণকারী| এছাড়াও গুলিবিদ্ধ হয়েছে দুই অপহরণকারী| গুলিবিদ্ধ অবস্থায় ওই দুই অপহরণকারীকে গুরু তেগ বাহাদুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে| ডিসিপি (অপরাধ) রাম গোপাল নায়েক জানিয়েছেন, ‘অভিযানের সময় শিশুটিকে মেরে ফেলার হুমকি দিয়েছিল অপহরণকারীরা| পুলিশের দলটি খুব দ্রুত ব্যবস্থা নিয়েছে এবং শিশুটিকে সুস্থ অবস্থায় উদ্ধার করেছে| অপহরণকারীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে পাঁচটি গুলি চালায়, জবাবে তিনটি গুলি চালায় পুলিশ|’ এই অভিযানের নাম দেওয়া হয়েছিল ‘সি. রিভার’| অপহরণকারীরা ৬০ লক্ষ টাকার মুক্তিপণ চেয়েছিল এবং পূর্ব দিল্লির ক্রস রিভার মলে গিয়ে সেই টাকা দেওয়ার কথা বলেছিল|

উল্লেখ্য, রোমহর্ষক ঘটনা ঘটেছিল গত ২৫ জানুয়ারি| ঘড়ির কাঁটায় সকাল তখন আটটা হবে, প্রায় ২৫ জন পড়ুয়াকে নিয়ে স্কুল অভিমুখে যাচ্ছিল এক স্কুলবাস| জিটিবি এনক্লেভ-এর কাছে বিবেকানন্দ স্কুলের সন্নিকটে বাসটিকে থামায় দুই আততায়ী| এরপর বাসের চালককে গুলি করে, দুষ্কৃতীরা ওই বাস থেকে প্রথম শ্রেণির পড়ুয়া রেহানকে অপহরণ করে পালিয়ে যায়| ওই ঘটনার জেরে বাসে উপস্থিত অন্য পড়ুয়ারা আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়ে| প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছিলেন, কালো রঙের একটি মোটরবাইকে চড়ে এসেছিল দুষ্কৃতীরা| স্কুল পড়ুয়াকে অপহরণ করার পরই উত্তর প্রদেশের দিকে পালিয়ে যায় আততায়ীরা| গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করে দিল্লি পুলিশের অপরাধ দমন শাখা| টানা ১২ দিন পর অবশেষে সাফল্য পেল দিল্লি পুলিশ|

Loading...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here